করোনায় মৃত্যুবরণ করা পুলিশ কর্মকর্তার জানাজা পড়ালেন (এমপি) রিমন!

জেলা প্রতিনিধি | প্রকাশিত : ০১ মে ২০২০ , ২:৪০ অপরাহ্ণ

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মৃত্যুবরণ করা পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুল খালেকের দাফন সম্পন্ন হয়েছে নিজ বাড়ি বরগুনার বেতাগী উপজেলার ঝোপখালি গ্রামে। বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে তাঁর দাফন সম্পন্ন হয়।

দাফনের আগে মরহুম আব্দুল খালেকের জানাজার নামাজ পড়ান বরগুনা-২ (পাথরঘাটা-বামনা-বেতাগী) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শওকত হাচানুর রহমান রিমন। জানাজা নামাজে অংশগ্রহণ করেন বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমেদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. শাহজাহান হোসেন, বেতাগীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিব আহসান, বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাখাওয়াত হোসেন তপু সহ আরও অনেকে। এছাড়াও জানাজা নামাজে মরহুমের আত্মিয় স্বজনরা অংশগ্রণ করেন।  করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে বৃহস্পতিবার ভোররাতে মৃত্যুবরণ করেন এএসআই আব্দুল খালেক (৩৬)। তিনি ঢাকার মিরপুরের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট এ কর্মরত ছিলেন। জানাজার নামাজ শেষে তার স্বজনরা মৃতদেহ দাফন করেন।

আরো পড়ুন

দাফন শেষে মরহুমের ছেলে-মেয়ে এবং স্ত্রীসহ স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেন সাংসদ রিমন ও এসপি মারুফ হোসেনসহ উপস্থিত পুলিশ ও প্রসাসনের কর্মকর্তারা। তারা মরহুমের স্বজনদের সান্তনা দেয়ার পাশাপাশি বিপদ আপদসহ সবসময় তাদের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন। এসময় মরহুমের পরিবারকে নগদ অর্থসহ খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয় বরগুনা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে।
ডিএমপির পুলিশ অর্ডার ম্যানেজমেন্ট (পিওএম) দক্ষিণে কর্মরত ছিলেন এএসআই আব্দুল খালকে (৩৬)। আব্দুল খালেকের ২৮ এপ্রিল করোনা উপসর্গ দেখা দিলে আইইডিসিআর ওই দিনই তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে এবং ২৯ এপ্রিল নমুনা টেষ্টে কভডি-১৯ পজেটিভি আসে। এরপর থেকে তাঁকে আরামবাগ হোটেলে আইসোলেশনে রাখা হয়। বুধবার দিবাগত রাতে তাঁর অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে (সিপিএইচ) আইসইিউতে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোরের দিকে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করনে। আব্দুল খালেক বরগুনা জেলার বেতাগী থানার ঝোপখালী গ্রামে ১৯৮৪ সালে জন্মগ্রহণ করনে। আব্দুল খালেক মৃত.আজজি মৃধার ছেলে। তিনি ২০০৪ সালে বাংলাদেশ পুলিশের কনষ্টেবল পদে যোগদান করনে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই কন্যা ও এক পুত্রসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন

 

দেশজুড়ে
১ মে ২০২০