শ্বশুর বাড়ি বেড়াতে এসে চিত্রা নদীতে ডুবে জামাইয়ের মৃত্যু

উপজেলা প্রতিনিধি | প্রকাশিত : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ , ১০:২২ পূর্বাহ্ণ

জামান হোসনে জন, কালিয়াঃ স্বপ্নের চাকুরীতে আর যোগদান করা হলো না জনি সরদারের (২৫)। তার পিতা-মাতার আশা ছিলো ছেলে চাকুরীতে যোগদানের পর পুত্রবধূ সোহাগী খাতুনকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরে তুলে নিবে ধুমধাম করে। সে আশাও পূরণ হলো না পরিবারের। যোগদানের মাত্র তিনদিন আগে নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পেড়লী গ্রামে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে পাশ্বববর্তী চিত্রা নদীতে গোসল করার সময় পানিতে ডুবে তিনি চিরতরে চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

জনি সরদার খুলনার ফুলতলা উপজেলার আলকা পূর্বপাড়া গ্রামের সরদার শরিফুল ইসলামের ছেলে।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, নড়াইলের কালিয়া উপজেলাধীন পেড়লী গ্রামের নূর মোহাম্মাদ মুন্সির মেয়ে মোসাঃ সোহাগী খাতুনের (১৯) সঙ্গে প্রায় এক বছর পূর্বে খুলনার ফুলতলা উপজেলার আলকা পূর্বপাড়া নিবাসী মোঃ সরদার শরিফুল ইসলামের ছেলে মোঃ জনি সরদারের ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক রেজিষ্ট্রী কাবিনমূলে বিয়ে হয়। বিয়ের পর অদ্যাবধি আনুষ্ঠানিকভাবে স্ত্রীকে ঘরে তুলে নেয়া সম্ভব না হলেও শ্বশুর বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত ছিলো বর-কনের। এরই ধারাবাহিকতায় রবিবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে জনি সরদার স্ত্রী সোহাগীকে সঙ্গে নিয়ে ফুলতলার নিজগ্রাম আলকা থেকে কালিয়ার পেড়লী গ্রামে তার শ্বশুরালয়ে বেড়াতে যান। ওইদিন বেলা ১২টার দিকে তিনি পার্শ্ববর্তী চিত্রা নদীতে গোসল করতে গিয়ে ডুব দেন। এ সময় তার স্ত্রী সোহাগী নদীর পাড়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার পরও স্বামীকে পানির নিচ থেকে উপরে ভাসতে না দেখে স্ত্রী সোহাগী চিৎকার শুরু করেন। তার চিৎকার শুনে দিলে পার্শ্ববর্তী লোকজন এসে নদীতে নেমে তাকে খুঁজতে থাকে।

নড়াইলের কালিয়ায় চিত্রা নদীতে ডুবে পেড়লীর জামাই ফুলতলার জনি সরদারের মৃত্যু

এ সময় পুত্রবধূ সোহাগীর ফোন থেকে ওই ঘটনা জানতে পেরে জনির পিতামাতা দ্রুত ছুটে যান পেড়লীতে। কিন্তু তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর পরও ছেলের কোনো সন্ধান না পেয়ে খুলনার ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ডুবুরীদলকে খবর দেন। ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে চিত্রা নদীর তলদেশ থেকে জনির মৃতদেহ উদ্ধার করে ডাঙ্গায় তোলেন। এ সময় ছেলের লাশ দেখে বার বার মূর্ছা যান জনির পিতা-মাতা। প্রলাপ বকতে থাকেন জনির স্ত্রী সোহাগী খাতুন। সর্বত্রই নেমে আসে শোকের ছায়া। শোকে মুর্হমান হয়ে পড়েন উপস্থিত হাজারো মানুষ। এ সময় এক হুদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, নদীতে ডুব দেয়ার পর ষ্ট্রোক হওয়ায় পানিতে ডুবে তার অকাল মৃত্যু হয়েছে।

জনির পিতা সরদার শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘খুলনার কনডম তৈরির কারখানা ‘ল্যাটেক্স ফ্যাক্টরীতে’ জনির চাকুরী হয়েছে। ১ অক্টোবর তার যোগদান করার কথা ছিলো। আশা ছিলো ছেলে চাকুরীতে যোগদানের পর সুবিধামত সময়ে পুত্রবধূকে ধুমধামের সঙ্গে তুলে নিবো। কিন্তু বিধিবাম। সে আশা আর পূরণ হলো না। তার আগেই আল্লাহ্ আমার ছেলেকে দুনিয়া থেকে চিরতরে নিয়ে গেলেন।’

দেশজুড়ে
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০