কালিয়ায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে ব্যাংকের নিরাপত্তা কর্মী নিহত, গুলিবিদ্ধ ৯

উপজেলা প্রতিনিধি | প্রকাশিত : ০৫ আগস্ট ২০২০ , ৭:১৪ অপরাহ্ণ

নড়াইলের কালিয়া উপজেলায় নবগঙ্গা নদী থেকে বালু উত্তোলনে বাঁধা দেওয়ায় মাসুদ রানা (৩৫) নামে একটি বেসরকারি ব্যাংকের নিরাপত্তাকর্মীকে গুলি করে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। ওই ঘটনায় নারী ও শিশুসহ ৯ জন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। আহতদেরকে কালিয়া, নড়াইল ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হামলাকারিবা ওইসময় এক আওয়ামী লীগ নেতার বাড়িসহ ৩ বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

বুধবার সকালে উপজেলার দেওয়াডাঙ্গা গ্রামে ঘটেছে ওই হত্যাকান্ডের ঘটনা। সন্ত্রাসী কাজল মোল্যাসহ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে পুলিশ ৬ জনকে আটক করেছে। ঘটনার পর থেকে এলাকায় আতংক ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হামলাকারিদের নিবৃত্ত করতে পুলিশ ফাঁকা গুলি বর্ষন করেছে। নিহত মাসুদ রানা দেওয়াডাঙ্গা গ্রামের আলী আকবর শেখের ছেলে ও ইসলামী ব্যাংক ফরিদপুর শাখার একজন নিরাপত্তা কর্মী হিসাবে কর্মরত ছিলেন।

আরো পড়ুন

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার দেওয়াডাঙ্গা গ্রামের পাশ দিয়ে প্রবাহিত নবগঙ্গা নদীর বিভিন্ন স্থান থেকে ওই গ্রামের মকবুল মোল্যার ছেলে কাজল মোল্যা দীর্ঘদিন যাবত অবাধে অবৈধ বালু উত্তোলন করে আসছিল। নদী থেকে বালু উত্তেলনের কারনে গ্রামবাসিরা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় অমিনুর শেখের নেতৃত্বে কাজল মোল্যার বালু উত্তোলনে বাঁধা দিলে তাদের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। তারই জের ধরে ওইদিন সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে কাজল মোল্যার নেতৃত্বে ৫০/৬০ জনের একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী অতর্কিতে অমিনুর শেখের বাড়িতে হামলা চালিয়ে শর্টগানের গুলি বর্ষন করে পর্যায় ক্রমে দলনেতা আমিনুর শেখ, শিমুল মোল্যা ও কালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য ও পুরুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সরদার তবিবর রহমানের বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর ও লুট পাট চালিয়েছে। হামলা চলাকালে সন্ত্রাসীদের গুলিতে ৪ বছরের শিশু ইভা খানম ও তার মা সাথী বেগমসহ (২২) মাসুদ রানা (৩৫), আঃ রহমান শেখ (৩৫), অনিক শেখ (২৭), আমিনুর সরদার (৪৫), ইমরান সরদার (৩০), রাজীব শেখ (২৫), হেকমত শেখ (৩৫) গুলিবিদ্ধসহ মুকুল শেখ (৩৫), মনোয়ারা বেগম (৩৫), তিশা খানম (১৮) ও শফি সরদারসহ (৬৫) অন্তত ১৫ জন আহত হন। গুলিবিদ্ধ মাসুদ রানাকে চিকিৎসার জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

স্থানীয় সুত্র জানিয়েছে ঘটানর মূল নায়ক কাজল মোল্যা ও তার ভাই টনি মোল্যা এবং একই গ্রামের ফেরদৌস মোল্যার ছেলে সোহান মোল্যাসহ ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

নড়াইলের সহকারি পুলিশ সুপার শেখ ইমরান বলেছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ শর্টগানের ৩ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষন করেছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে খুনিদের ধরতে পুলিশী অভিযান অব্যাহত থাকায় তিনি আটককৃতদের নাম প্রকাশ করতে পারেননি।

দেশজুড়ে
৫ আগস্ট ২০২০